চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে টাইগারদের পারফরম্যান্স খারাপ হতে পারে

আম্পায়ারদের গালি দিলেন তামিম ইকবাল!
Share Button

গত মার্চে ভারতে অনুষ্ঠিত টি২০ বিশ্বকাপে খেলেছে বাংলাদেশ দল। এরপর ছয় মাস আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের বাইরে থাকতে হচ্ছে মুশফিক-মাশরাফিদের। অক্টোবরে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ঘরের মাঠে পূর্নাঙ্গ সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ।

দীর্ঘদিন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের বাইরে থাকায় তাতে করে বাংলাদেশ দলের ওপর বাজে প্রভাব পড়বে বলে মনে করছেন বাংলাদেশ দলের বাঁহাতি ওপেনার তামিম ইকবাল। বাংলাদেশ দলের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ধারাবাহিক ভালো পারফরম্যান্সের জন্য আরো বেশি করে আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলার প্রয়োজন আছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

টি২০ বিশ্বকাপ শেষে গত ২২ এপ্রিল ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগ (ডিপিএল) নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েন বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। প্রায় দুই মাসের যাত্রা শেষে গত ২২ জুন শেষ হয়েছে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ। আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর দুটি টেস্ট ও তিনটি ওয়ানডে খেলতে বাংলাদেশ সফরে আসবে ইংলিশরা। তাই গত টি২০ বিশ্বকাপ শেষে ছয় মাস আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের বাইরে থাকবে মাশরাফি-মুশফিকরা। যা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাংলাদেশের ভালো খেলার পথে বড় ধরনের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে পারে বলে মনে করছেন তামিম।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ দলের বাঁহাতি ওপেনার বলেন, ‘এত ভালো মৌসুম কাটানোর পর আমরা ছয় মাস ধরে ক্রিকেট খেলছি না। এটা অবশ্যই আমাদের ওপর প্রভাব ফেলবে। আমাদের বিপক্ষে খেলার জন্য সবারই আগ্রহী হওয়া উচিত। কিন্তু আমরা বসে আছি। আমরা জানি না যে ছয় মাস পর কীভাবে খেলতে পারব। জিম্বাবুয়ে ছাড়া আর কোন দল এত লম্বা সময় ক্রিকেটের বাইরে থাকে না। তাই দীর্ঘদিন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের বাইরে থাকায় খারাপ একটা প্রভাব পড়তে পারে আমাদের খেলায়।’

গত মার্চে ভারতে টি২০ বিশ্বকাপের বাংলাদেশ আর কোনো আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ম্যাচের আয়োজন ঘরে কিংবা বাইরের দেশেও করতে পারেনি। মার্চে টি২০ বিশ্বকাপের পর আগামী অক্টোবারে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ঘরের মাঠে পূর্নাঙ্গ সিরিজ খেলবে টাইগাররা। এমনকি জুলাইয়ে ভারতে একটি মাত্র টেস্ট ম্যাচ খেলার কথা থাকলেও ওই সিরিজটি আগামী বছর ভারতে হবে। তাছাড়া সেপ্টেম্বরে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলকেও বাংলাদেশে নিয়ে আসার কথা থাকলে শেষ পর্যন্ত এই সিরিজটিও ব্যর্থ হয়েছে।

এসব ঘটনা সত্যিই বাংলাদেশের ক্রিকেটের জন্য হতাশাজনক ব্যাপার। যদিও ২০১৫ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে খেলছিল বাংলাদেশ দল। আর ওয়ানডে বিশ্বকাপ শেষে ঘরের মাঠে পাকিস্তান, ভারত এবং দক্ষিণ আফ্রিকার মতো শক্ত প্রতিপক্ষের বিপক্ষে ঘরের মাঠে সিরিজ খেলেছিল বাংলাদেশ দল। এসব সিরিজে ভালো পারফরম্যান্স করার ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশ দল কয়েক ধাপ উচুতে ওঠে। একই সঙ্গে ২০১৭ সালে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে বাংলাদেশ। আগামী চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির কথা বিবেচনা বাংলাদেশকে এখন প্রচুর পরিমাণে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ম্যাচ খেলতে হবে।

ছয় মাস আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে না খেলার দরুন এর প্রভাব পড়তে পারে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে। এ বিষয়ে তামিম বলেন, ‘পাঁচ বছর আগে আমরা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পজিটিভ খেলার উদ্দেশ্যে মাঠে নামতাম। পরে যখন আমরা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে জয় পেতে শুরু করি তখন আমাদের মানসিকতায় এসেছে বড় পরিবর্তন। আর এসব সম্ভব হয়েছে ধারবাহিকভাবে আমরা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ভালো পারফর্ম করেছি বলে।’

ধারাবাহিক সাফল্যের পরও বড় দেশগুলো বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলতে আগ্রহী হচ্ছে না। এর কারণ অবশ্য জানা নেই তামিমের, ‘পাঁচ বছর আগে আমরা যেমন খেলতাম, এখনও তেমন খেললে তবু কিছু বোঝা যেত। তখন আমাদের ফলাফলটা ছিল অনুমানযোগ্য। কিন্তু এত ভালো খেলার পর তারা কেন আমাদের বিপক্ষে খেলতে চায় না, তা আমি জানি না।’

বর্তমানে টেস্ট খেলুড়ে সব দলই ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে। টি২০ বিশ্বকাপের পর অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ খেলেছে ত্রিদেশীয় সিরিজ। শ্রীলঙ্কা টেস্ট ও ওয়ানডে সিরিজ খেলেছে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। পাকিস্তান গেছে ইংল্যান্ড সফরে। জিম্বাবুয়ে সফর শেষে ভারত এখন প্রস্তুতি নিচ্ছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের। আগামী জুলাই-আগস্টে নিউজিল্যান্ডও যাবে জিম্বাবুয়ে ও দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে। সবারই কাটছে ব্যস্ত সময়। শুধু বাংলাদেশই পাচ্ছে না আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলার সুযোগ। তাই অনেকটা হতাশ তামিম ইকবাল।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts