পাকিস্তানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফিরছে আজ

পাকিস্তানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফিরছে আজ
Share Button

দেখতে দেখতে কেটে গেল সাড়ে আটটি বছর। ২০০৯ সালের মার্চে শ্রীলংকান ক্রিকেটারদের বহনকারী বাসে সন্ত্রাসী হামলা চালাল উগ্র জঙ্গিরা। উগ্রপন্থীদের বন্দুকের গুলি আর গ্রেনেডের আঘাতে যেন পাকিস্তান থেকেই উড়ে গেলে ক্রিকেট। যে খেলাটি পুরো দেশকে এক সুতোয় আবদ্ধ করে ফেলতে পারতো। যে খেলাটি যুদ্ধ পর্যন্ত থামিয়ে দিতে পেরেছিল, সেটিই কি না পরাজিত হলো উগ্র জঙ্গিদের সন্ত্রাসের সামনে।

সেই ঘটনার পর কেটে গেছে দীর্ঘ সময়। পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড চেষ্টা করেছে, নানান ছলে-বলে কৌশলে নিজেদের দেশে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফেরাতে। কোনোভাবেই তাদের চেষ্টা সফল হয়নি। মাঝে বাংলাদেশসহ অনেকগুলো দেশকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিল তারা; কিন্তু সে আহ্বানে সাড়া মেলেনি। আফগানিস্তান আর জিম্বাবুয়ে কঠোর নিরাপত্তা বলয়ের মধ্যে থেকে সংক্ষিপ্ত সফর করে এসেছিল পাকিস্তানে। যদিও সে সফরগুলোকে আইসিসি অনুমোদন দেয়নি। ম্যাচ অফিসিয়াল পাঠায়নি।

Bisk Club
শেষ পর্যন্ত দীর্ঘ চেষ্টার পর সফলতার দ্বারপ্রান্তে পাকিস্তান। মূলতঃ ফ্রাঞ্চাইজি টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট পিএসএল (পাকিস্তান সুপার লিগ) দিয়েই এই সফলতার সূচনা করেছিল পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড। সর্বশেষ অনুষ্ঠিত পিএসএলের ফাইনালটি নানান বাধা আর হুমকির মুখেও লাহোরের গাদ্দাফী স্টেডিয়ামে আয়োজন করতে সক্ষম হয়েছিল পাকিস্তান।

এরপরই মূলতঃ পাকিস্তানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের দ্বার উন্মোচন হয়ে যায়। পাকিস্তান নিয়ে গঠিত টাস্কফোর্সও ইতিবাচক রিপোর্ট প্রদান করে আইসিসির কাছে। যে টাস্কফোর্সের প্রধান ছিলেন ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডের (ইসিবি) প্রধান জাইলস ক্লার্ক। পিএসএলের ফাইনাল আয়োজনের পরই পিসিবি পরিকল্পনা প্রনয়ণ করে এ বছরের শেষের অংশে তাদের দেশে আন্তর্জাতিক একাদশকে নিয়ে ৩ ম্যাচের একটি টি-টোয়েন্টি সিরিজ আয়োজনের।

সে পরিকল্পনাই অবশেষে বাস্তবায়ন হতে যাচ্ছে। বিশ্বের সাতটি টেস্ট খেলুড়ে দেশ থেকে ক্রিকেটার নিয়ে গঠন করা হয়েছে ১৫ সদস্যের আন্তর্জাতিক একাদশ। যে দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন দক্ষিণ আফ্রিকার ফ্যাফ ডু প্লেসিস। কোচ হয়েছেন ইংল্যান্ডের সাবেক কোচ অ্যান্ডি ফ্লাওয়ার। ভারত বাদে আর সব টেস্ট খেলুড়ে দেশেরই ক্রিকেটার রয়েছেন এই দলে। বাংলাদেশ থেকে এই সিরিজে খেলতে গেলেন তামিম ইকবাল।

আইসিসিও পাঠাচ্ছে ম্যাচ অফিসিয়াল। ক্যারিবিয়ান গ্রেট রিচি রিচার্ডসনকে পাঠানো হয়েছে ম্যাচ রেফারি হিসেবে। এছাড়া আলিমদার সহ এক ঝাঁক আন্তর্জাতিকমানের আম্পায়ার পরিচালনা করেবেন।

বহু প্রতিক্ষিত এই সিরিজটির তিনটি ম্যাচই অনুষ্ঠিত হবে লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে। যার প্রথমটি মাঠে গড়াবে আজ (মঙ্গলবার)। রাতের ফ্লাড লাইটের আলোয় অনুষ্ঠিত হবে ম্যাচগুলো। বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় শুরু হবে প্রতিটি ম্যাচ।

আন্তর্জাতিক একাদশের ক্রিকেটাররা প্রথমে জড়ো হয়েছিলেন দুবাইতে। সেখান থেকে তারা আজ এসেছেন লাহোরে। কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে আন্তর্জাতিক একাদশের জন্য। পাকিস্তান সরকারের পক্ষ থেকে প্রেসিডেন্সিয়াল নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে ক্রিকেটারদের জন্য। পিসিবি আশা করছে, সফলভাবে এই সিরিজ শেষ করতে পারলে টেস্ট খেলুড়ে দেশগুলোও সিরিজ খেলার জন্য আসতে শুরু করবে পাকিস্তানে।

তিন ম্যাচের এই সিরিজের বাকি দুটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে বুধবার এবং শুক্রবার।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts