বিসিবির চাপে অবসর নিয়েছেন মাশরাফি?

ভেবেছিলেন মুস্তাফিজ সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি হবে, কিন্তু বল তো ব্যাটেই লাগে না : মাশরাফি
Share Button

জানুয়ারিতেই বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন হঠাৎ করে চাউর করে দিয়েছিলেন, অবসর নিয়েছেন মাশরাফি। দল খেলছিল নিউজিল্যান্ডে। ঢাকায় বসে মাশরাফির অবসরের ঘোষণা দেন বিসিবি সভাপতি। মাশরাফি নিজেই নিউজিল্যান্ডে বসে অবাক হয়ে যান। তবে বোর্ড সভাপতিই পরক্ষণে ঘোষণাটা বদলে দেন।

গত বছর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ চলাকালেই দেশের শীর্ষস্থানীয় এক পত্রিকা খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে মাশরাফির কাছ থেকে বের করার চেষ্টা করেছিলেন, টি-টোয়েন্টি থেকে তিনি কবে অবসর নেবেন? কিন্তু মাশরাফি সরাসরি জানিয়ে দেন, কোনো ফরম্যাট থেকেই তার অবসরের ইচ্ছা নেই। একই সঙ্গে এটাও জানান, জাতীয় লিগে একটি ম্যাচ খেলে চেষ্টা করবেন সাদা পোশাকে অন্তত আরও একটি ম্যাচে মাঠে নামতে চান।

নিউজিল্যান্ডে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে পরাজয়ের পর গুঞ্জন উঠেছিল, বিসিবি চায় সিনিয়রদের বাদ দিয়ে সাকিব আল হাসানের নেতৃত্বে তরুণদের নিয়ে একটি দল গঠন করত। এটা মূলতঃ কোচ হাথুরুসিংহের চাওয়া। তার নিজের ইচ্ছা বিসিবিকে দিয়ে বাস্তবায়ন করিয়ে নিচ্ছেন। তিনি নাকি বিসিবিকে বলেছিলেন, টি-টোয়েন্টিতে মাশরাফি, তামিম, মুশফিক এবং রিয়াদদের কোনো প্রয়োজন নেই। তাদের বাদ দিয়ে তরুণদের সুযোগ করে দিতে হবে।

বিসিবিতে জোর আলোচনা চলছিল তখন; কিন্তু অনেক কাজের ভিড়ে হয়তো এটিও চাপা পড়ে গিয়েছিল। তবে মাশরাফি বরাবরই বলে আসছিলেন কোনো ফরম্যাটকেই বিদায় বলতে চান না তিনি। শ্রীলঙ্কা সফরের আগেই সংবাদ মাধ্যমকে বলে গিয়েছেন, তার স্বপ্ন টি-টোয়েন্টি দলকে একটা শক্ত ভিতের ওপর দাঁড় করে যাওয়া।

কিন্তু শ্রীলঙ্কায় যাওয়ার পর বিসিবির সেই পুরনো চিন্তার আবারও উদয় ঘটে। বিশেষ করে, গল টেস্টে ২৫৯ রানের বিশাল পরাজয়ের পর। কলম্বোয় শততম টেস্টে যদি না জিততো, তাহলে হয়তো দলের ভেতর আরও তোলপাড় সৃষ্টি হয়ে যেতো। এমনিতেই শততম টেস্টে ছিল চার পরিবর্তন। ওই টেস্টে না জিতলে হয়তো ওয়ানডে সিরিজে আমূল পরিবর্তন দেখা যেতো। তবুও মাশরাফির ওপর যে চাপ কম ছিল তা নয়। দারুণ চাপ নিয়ে ওয়ানডে সিরিজ খেলে গেছেন টিম বাংলাদেশের অধিনায়ক।

বিভিন্ন সূত্রের খবর, কোচ হাথুরুসিংহে টি-টোয়েন্টি থেকে মাশরাফিকে সরে দাঁড়ানোর জন্য নাকি বিসিবি কর্মকর্তাদের চাপ দিতে থাকেন। বিসিবিও মাশরাফিকে ভাবার কথা জানিয়ে দেয়। এমনকি ঘনিষ্ট সূত্রের খবর হলো, সোমবারই দলের চার সিনিয়র ক্রিকেটারকে ডেকে কথা বলেন বিসিবি সভাপতি এবং জানিয়ে দেন তিন ফরম্যাটে তিন অধিনায়ক চান তিনি।

এরপরই আজ ম্যাচের আগে পরিবারের সঙ্গে কথা বলে অবসরের সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেন মাশরাফি। সন্ধ্যা পৌনে ৭টা নাগাদ ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে সাধারণ মানুষকে জানিয়ে দেন মাশরাফি। তার আগেই অবশ্য দলের সিনিয়র ক্রিকেটারদের সিদ্ধান্তের বিষয়ে জানান ম্যাশ। পরবর্তীতে জানান দলের সবাইকেই। এরপর টস করতে নেমে ধারাভাষ্যকার ডিন জোন্সের প্রশ্নের জবাবেও অবসরের ঘোষণা দেন মাশরাফি।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts