মাস্ক পরে মাঠে ক্রিকেটাররা!

Ind Vs SL Test Cricketer's wear mask on field

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এমন দৃশ্য দেখা যায়নি আগে কখনো। মুখে মাস্ক পরে মাঠে খেলা চালিয়ে যাচ্ছেন ক্রিকেটাররা! রোববার ভারত আর শ্রীলঙ্কার মধ্যকার দিল্লি টেস্টে দেখা গেল এমন ঘটনা। নগরীতে চরম বায়ুদূষণের কারনে এমন পরিস্থিথি তৈরি হয়, যার জেরে ২০ মিনিটের মতো খেলা বন্ধ থাকে।

কয়েকজন লঙ্কান ক্রিকেটার অসুস্থ বোধ করেন যে কারনে মধ্যাহ্ন বিরতির পর মাস্ক পড়ে মাঠে নেমে প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন। শ্রীলঙ্কার কোচ নিক পোথাস জানিয়েছেন ‘ক্রিকেটারেরা বমি করছিল। শ্বাসকষ্টে ভুগছিল। ভারত অবশ্য এমন অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

দিল্লিতে অবশ্য বায়ু দূষণে জনজীবন বিপর্যস্ত গত কয়েক মাস ধরেই। ফিরোজ শাহ কোটলা স্টেডিয়ামে টেস্টের দ্বিতীয় দিনে, সে দূষণের চরম অবস্থাই যেন দেখিয়ে দিল শ্রীলঙ্কা দল। লংকান অধিনায়ক দিনেশ চান্দিমাল, সুরাঙ্গা লাকমলসহ ছয়-সাতজন ফিল্ডার মুখে মাস্ক লাগিয়ে ফিল্ডিং করছেন, এমন দৃশ্য তো আর হরহামেশা দেখা যায় না!শুধু লঙ্কান ক্রিকেটাররা নন। মাঠে পানি নিয়ে আসা ভারতীয় খেলোয়াড়দের মুখেও মাস্ক দেখা যায়। সেই সাথে মাঠে ধোঁয়াশা নিয়ে আম্পায়ারদের কাছে অভিযোগ জানালে প্রায় ২০ মিনিটের মতো খেলা বন্ধ থাকে। ‘মাস্ক’ পরা শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটারদের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। অবশ্য ভারতীয় সমর্থকরা উল্টো লঙ্কান ক্রিকেটারদেরই দুষছেন। তাদের মতে, কোহলিদের কাছে বিধ্বস্ত চান্দিমালরা অজুহাত দিচ্ছেন। সেই দাবি উড়িয়ে দিয়ে লঙ্কান কোচ জানান, খেলা থামানো তাঁদের উদ্দেশ্য ছিল না। ড্রেসিংরুমে গিয়ে সুরঙ্গা লাকমল বমি করে যাচ্ছিলেন। সে সব দেখেই তাঁরা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন।

ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডও লঙ্কান ক্রিকেটারদের দাবি উড়িয়ে দিযেছে। বিসিসিআই এর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সি কে খন্না বলেন, ‘গ্যালারিতে উপস্থিত ২০ হাজার দর্শকের কারও মাস্ক লাগল না। দিব্যি খেলা দেখল ওরা। বুঝলাম না, শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটারদেরই শুধু অসুবিধা হল কেন?’ খেলা শেষে সাংবাদিক সম্মেলনে ভারতীয় বোলিং কোচ বি. অরুণ কটাক্ষ করে বলেন “বিরাট তো দু’দিন ধরে ব্যাট করে গেল। ওর তো কোনও মাস্ক লাগল না।আমরা লক্ষ্যের উপরেই ফোকাস করতে চাই। আর সেই লক্ষ্য হচ্ছে ম্যাচটা জেতা।”

অন্যদিকে,খেলা বন্ধ রেখে ম্যাচ রেফারি ডেভিড বুনকে একজন ডাক্তারের কাছ থেকেও পরামর্শ নিতে দেখা যায়। খেলা শুরু হতেই কোটলার ফ্লাড লাইট জ্বলে ওঠে।কিছুক্ষণ পরে ওভারের মাঝখানে লাহিরু গামাগে ফের অস্বস্তি বোধ করেন ও মাঠ ছেড়ে বেরিয়ে যান।একটু পরে তাঁর পথ ধরলেন অন্য পেসার সুরাঙ্গা লাকমলও। শ্রীলঙ্কার ড্রেসিংরুমে তখন হাহাকার। মাঠে নামার মতো কেউ নেই। অথচ মাঠে দশ জন।

হেলমেটে বল লাগায় সাদিরা সমরাবিক্রমাও এ দিন নামেননি। ভারতীয় কোচ রবি শাস্ত্রী, শ্রীলঙ্কার ম্যানেজার অশাঙ্ক গুরুসিংঘে ও চান্দিমলদের মাঠে ডেকে নেন আম্পায়াররা।ক্যারিয়ারের প্রথম ট্রিপল সেঞ্চুরির সুযোগ থাকলেও সেই মুহূর্তেই দিল্লির ছেলে কোহলি ইনিংস ঘোষণা করেন।

ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের সামনে অসহায় বোলারদের একটু নিশ্বাস ফেলার জায়গা তৈরি করতেই কি লঙ্কানদের এমন দূষণ-নাটক? এছাড়া একটি প্রশ্ন ভালভাবেই উঠছে তাহলো, দিল্লির দূষণ নিয়ে কারও মনেই কোনো সন্দেহ নেই। তবে মাস্ক পরে খেলা নিয়ে ম্যাচ আম্পায়ার এবং রেফারি কেন কোন ব্যবস্থা নিলেন না?

রিপোর্টঃ জাহিদুল ইসলাম, ঢাকা
mail: Zahid150891@gmail.com

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts