মুস্তাফিজেই ঘুরপাক খাচ্ছে ভারত

Asia cup Mustafiz
Share Button

ক্রিকেটবিশ্বকে চমকে দিয়ে গত বছর ওয়ানডের আকাশে আবির্ভাব মুস্তাফিজুর রহমানের। বাংলাদেশের তরুণ বাঁ-হাতি পেসার চমকে দিয়েছিলেন ধোনিদেরও। আবারও বাঁ-হাতি এই পেসারের মুখোমুখি হওয়ার আগে বিরাট কোহলি জানালেন, মুস্তাফিজের বোলিং ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের জন্যও ছিল নতুন অভিজ্ঞতা। শুধু উইকেট সংখ্যায় নয়, ভারতের ড্রেসিংরুমে মুস্তাফিজ বিস্ময় উপহার দিয়েছিলেন শক্তিশালী ব্যাটিং লাইনআপকে নিজের বৈচিত্র্যময় বোলিংয়ে। কোহলির মতে, এশিয়া কাপেও বাংলাদেশের জন্য বড় ‘ফ্যাক্টর’ হবেন এই তরুণ বোলিং সেনসেশন।

এশিয়া কাপের প্রথম ম্যাচেই আজ দেখা হচ্ছে কোহলি ও মুস্তাফিজের। মিরপুরে বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে এশিয়া কাপ। চোটের কারণে প্রথম ম্যাচে খেলা নিয়ে ধোনি অনিশ্চয়তায়। মঙ্গলবার প্রাক-টুর্নামেন্ট সংবাদ সম্মেলনে ভারতের প্রতিনিধি ছিলেন কোহলি। দু’দলের সবশেষ লড়াইয়ে পার্থক্য গড়ে দিয়েছিলেন মুস্তাফিজ। অভিষেক ম্যাচে নিয়েছিলেন পাঁচ উইকেট, পরের ম্যাচে ছয়টি। ভারতকে প্রথমবারের মতো দ্বিপাক্ষিক সিরিজে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। পরে দক্ষিণ আফ্রিকা ও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হোম সিরিজেও নিজের বৈচিত্র্যের পসরা মেলে ধরেছিলেন মুস্তাফিজ। সব মিলিয়ে নয় ম্যাচে নিয়েছেন ২৬ উইকেট। পাঁচ উইকেট তিনবার! তরুণ একজন বোলারকে এভাবে বোলিং করতে দেখে মুগ্ধ কোহলি।

‘মুস্তাফিজ সত্যিই খুব ভালো করেছে। আমাদের বিপক্ষে খেলার সময় থেকে। বাংলাদেশের হয়ে দারুণ বোলিং করেছে সে। ১৯ বছর বয়সী একটা ছেলেকে এভাবে বোলিং করতে দেখাটা রোমাঞ্চকর। অবশ্যই সে এই টুর্নামেন্টেও বাংলাদেশের জন্য বড় ফ্যাক্টর।’

মুস্তাফিজের বৈচিত্র্যময় বোলিং ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের ভড়কে দিয়েছিল, জানালেন কোহলি। ‘১৪০ কিমির আশেপাশে গতির সঙ্গে স্লোয়ার বল করছিল, আমাদের জন্য সেটি ছিল ব্যতিক্রমী এক অভিজ্ঞতা। নতুন বলেও খুব ভালো স্লোয়ার ও কাটার করছিল সে।’

প্রতিপক্ষ দলে এমন একজন বোলার থাকা বিপজ্জনক। তবে বিশ্বের অন্যতম সেরা এই ব্যাটসম্যান এটিকে দেখছেন বৃহত্তর দৃষ্টিকোণ থেকে। ভারতের টেস্ট অধিনায়ক বলেছেন, মুস্তাফিজের মতো বোলাররা ক্রিকেটের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

‘খেলাটায় নতুন কিছু নিয়ে এসেছে মুস্তাফিজ, খেলাটাকে আরও ঝাঁঝালো করেছে। খেলাটার জন্য এটা খুব ভালো। দক্ষিণ আফ্রিকার কাগিসো রাবাদাও রোমাঞ্চকর তরুণ বোলার। এমন কিছু বোলার থাকাটা খেলাটার জন্য গুরুত্বপূর্ণ, যারা ব্যাটসম্যানদের বিপাকে ফেলতে পারে’, বলেছেন কোহলি।

ব্যতিক্রমী বোলারদের সামলানো ব্যাটসম্যানদের জন্যও চ্যালেঞ্জ। কোহলির মতে, সেই চ্যালেঞ্জ ইতিবাচকভাবে নিলে নিজের ব্যাটিং বিকশিত হয়।

‘বাংলাদেশের কন্ডিশনে একজন পেসার যদি ৪-৫ উইকেট নিতে পারে এবং ব্যাটসম্যানদের বিপাকে ফেলতে পারে, এতে খেলাটা আরও প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হয়। ব্যাটসম্যান হিসেবে উত্তাপ টের পাওয়া যায় যে, এই ছেলেটার আলাদা এক ধরনের স্কিল আছে। সেভাবেই প্রস্তুতি নিতে হবে, তাকে সামলানোর জন্য আলাদা কিছু করতে হবে। নিজের খেলার তাতে আরও উন্নতি হবে’, তার সংযোজন।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts

Leave a Comment