বাংলাদেশের ৮৭ অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দিয়েছে ফেসবুক

fb-blocked
Share Button

আপত্তিকর তথ্য প্রকাশ করায় বাংলাদেশের ৮৭টি অ্যাকাউন্ট বন্ধ করেছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।

গত ১৮ মাসে ফেসবুক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে সন্ত্রাস, ধর্মীয় উসকানিসহ অন্যান্য আপত্তিকর বিষয়ে মোট ১৯৬টি অ্যাকাউন্ট, পেজ বা লিংক বন্ধ করার জন্য বাংলাদেশের পক্ষ থেকে অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে এসব বন্ধ করা হয়।

বর্তমানে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে অভিযোগের ভিত্তিতে সাড়া দিচ্ছে বলে দাবি সংশ্লিষ্টদের।

সোমবার সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে এসব তথ্য জানান ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। সোশ্যাল মিডিয়াসহ অনলাইন মিডিয়াগুলো মানুষের সক্ষমতা অনেক ক্ষেত্রেই বৃদ্ধি করে বলে মন্তব্য করেন তিনি। প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের মতো বাংলাদেশেও কখনও কখনও এর অপব্যবহার লক্ষণীয়।

তারানা হালিমের দেয়া তথ্যানুযায়ী সোশ্যাল মিডিয়ায় কোনো প্রকার পোস্ট যদি সহিংসতা ছড়ায়, তখন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তালিকা করে সেসব ক্ষেত্রে ‘ইউআরএল’ বিটিআরসিতে পাঠানো হয়। বিটিআরসি বাংলাদেশ কম্পিউটার সিকিউরিটি ইনসিডেন্ট রেসপন্স টিম (বিডি-সিএসআইআরটি), ন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন্স মনিটরিং সেন্টারের (এনটিএমসি) মাধ্যমে ব্যবস্থা নেয়া হয়।

প্রতিমন্ত্রী আরও জানান, বিভিন্ন আইন প্রয়োগকারী সংস্থা, এনটিএমসি এবং গোয়েন্দা সংস্থা থেকে জঙ্গিবাদ ছড়ানো বিষয়ে ফেসবুক এবং অনলাইন মিডিয়ার সর্বমোট ৩১টি অ্যাকাউন্ট, পেজ বা লিংক এবং বিভিন্ন নিউজ পোর্টাল, ব্লগ বন্ধ করার জন্য ফেসবুক কর্তৃপক্ষ এবং সব আইআইজিকে অনুরোধ করা হয়। এর মধ্যে ২৫টি অ্যাকাউন্ট, পেজ বা লিংক এবং বিভিন্ন নিউজ পোর্টাল, ব্লগ বন্ধ করা হয়েছে।

রাষ্ট্রায়ত্ত মোবাইল অপারেটর টেলিটক নিয়ে মিডিয়ায় প্রকাশিত নানা অভিযোগ নিয়ে সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি আমিনা আহমেদের প্রশ্নের উত্তরে প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেন, টেলিটকের বিরুদ্ধে পত্রিকায় প্রকাশিত অধিকাংশ অভিযোগই সঠিক নয়। আর কিছু অভিযোগ পর্যাপ্ত তথ্যের ঘাটতির কারণে অনেক ক্ষেত্রেই বিকৃতভাবে উপস্থাপিত হয়ে থাকে।

প্রতিমন্ত্রী জানান, টেলিটকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৫ সালের ২ ডিসেম্বর অফিস আদেশের মাধ্যমে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। মোবাইল কলরেট কমানো নিয়ে প্রশ্ন করেন চট্টগ্রাম-১২ আসনের এমপি সামশুল হক চৌধুরী।

উত্তরে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জানান, বিটিআরসি মোবাইল ফোনের কলরেট সর্বনিন্ম ২৫ পয়সা মিনিট থেকে সর্বোচ্চ দুই টাকা মিনিট নির্ধারণ করেছে, যা প্রতিবেশী দেশগুলোর তুলনায় যথেষ্ট কম বলে বিবেচিত। ভবিষ্যতে প্রয়োজনের আলোকে মোবাইল ফোনের কলরেট পুনর্নির্ধারণ করা হবে।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts