শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কে কী আছে?

শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক
Share Button

 

তথ্যপ্রযুক্তি খাতের বিকাশের সুফল দেশের তৃণমূল পর্যায়ে  পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে যশোরে যাত্রা শুরু হল ‘শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি’ পার্কের।

 

রোববার (১০ ডিসেম্বর) দুপুরে রাজধানীর গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে পার্কটির উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় পার্ক মিলনায়তনে মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরের মাধ্যমে তার সঙ্গে কথা বলার সুযোগ পান যশোরের বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ।

দেশের প্রতিটি জেলায় একটি করে হাই টেক পার্ক করার পরিকল্পনার কথা এ অনুষ্ঠানে আবারও তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আমি তো মনে করি এটা আমাদের রপ্তানিতে সবথেকে বড় অবদান রাখতে পারবে।”

২০১০ সালের ডিসেম্বরে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এই জেলায় বিশ্বমানের একটি তথ্যপ্রযুক্তি পার্ক স্থাপনের প্রতিশ্রুতি দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।তার চার বছরের মাথায় ২০১৪ সালের এপ্রিলে বেজপাড়া শংকরপুর এলাকায় ২ লাখ ৩২ হাজার বর্গফুট জমির ওপর ‘শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি’ পার্কের নির্মাণ কাজ শুরু হয়।এ সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কে ১৫ তলার মূল ভবনের পাশাপাশি তিন তারকা মানের একটি ১২তলা ডরমেটরি ভবন রয়েছে। বিদেশী উদ্যোক্তাদের চাহিদা অনুযায়ী ডরমেটরি ভবনের ১১তলায় তৈরি করা হয়েছে আন্তর্জাতিক মানের একটি জিম।সেই সঙ্গে রয়েছে আধুনিক কনভেনশন সেন্টার ও আন্ডারগ্রাউন্ট পার্কিংয়ের ব্যবস্থা। বিদ্যুৎ চাহিদা মেটাতে করা হয়েছে ৩৩ কেভিএ পাওয়ার সাব- স্টেশন। নির্মান ব্যায় ৩০৫ কোটি টাকা ।

পার্কটিতে মূলত সফটওয়্যার উন্নয়ন, ফ্রিল্যান্সিং/আউটসোর্সিং, কল সেন্টার, তথ্যপ্রযুক্তি-সংক্রান্ত রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ও উন্নয়নসহ বিভিন্ন ধরনের কাজ হবে। এর মাধ্যমে খুলনা বিভাগের ১০ জেলার তরুণ উদ্যোক্তাদের পাশাপাশি তথ্যপ্রযুক্তি খাতের অন্য দেশি-বিদেশি উদ্যোক্তারা বিনিয়োগের সুযোগ পাবেন। পার্ক চালুর প্রথম দিকেই এ অঞ্চলের ১২ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হবে।

 

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts