ধর্ষণ চেষ্টা করায় ‘বাবা’র লিঙ্গ কেটে দিল তরুণী

লিঙ্গ কর্তন
Share Button

ধর্ষণের চেষ্টা করায় ভারতের কেরালা অঙ্গরাজ্যে এক ‘স্বঘোষিত বাবা’র লিঙ্গ কেটে দিয়েছে দেশটির ২৩ বছর বয়সী এক তরুণী। তরুণীর অভিযোগ, নিজের অসুস্থ পিতার চিকিৎসার করতেন ওই বাবা। এই সুযোগে কয়েক বছর ধরেই তাকে ধর্ষণ করে আসছিলেন স্বঘোষিত ওই বাবা।

পুলিশ বলছে, অভিযুক্ত ওই ‘বাবা’র নাম গঙ্গেশানন্দ থির্থপদ। তরুণীর বাবা দীর্ঘদিন ধরে পক্ষাঘাতে আক্রান্ত। তাকে সারিয়ে তুলতে গঙ্গেশানন্দের শরণাপন্ন হয়েছিলেন তার মা। চিকিৎসার নামে ওই ‘বাবা’ প্রায়ই তাদের বাড়িতে আসতেন। গত আট বছর ধরে তাকে বিভিন্ন সময় স্বঘোষিত ওই বাবা ধর্ষণ করেছেন বলে অভিযোগ তরুণীর। ১৬ বছর বয়সে প্রথম এই স্বঘোষিত গুরুর ধর্ষণের শিকার হয়েছিলেন।

তবে ধর্ষণের অভিযোগ নিজের মা’কে জানালেও স্বামীর চিকিৎসার জন্য মেয়ের অভিযোগকে তেমন পাত্তা দেননি ওই তরুণীর মা। গত শুক্রবার রাতে ধর্ষণের চেষ্টা করেন ওই স্বঘোষিত বাবা। এ সময় ধারালো ছুরি নিয়ে গঙ্গেশানন্দের পুরুষাঙ্গ কর্তন করেন তরুণী। পরে পুলিশের কাছে ফোন করেন তিনি।

পুলিশ ‘স্বঘোষিত বাবা’কে উদ্ধারের পর থিরুভানানথাপুরাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি অস্ত্রোপচার বিভাগে ভর্তি করে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এক বিবৃতিতে বলছে, শনিবার রাত ১২টা ৩৯ মিনিটে ৫৪ বছর বয়সী কোল্লামের এক ব্যক্তি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তার পুরুষাঙ্গের ৯০ শতাংশ ছিন্ন হয়েছে। ঝুলে থাকায় অস্ত্রোপচার করার মতো অবস্থা ছিল না।

কেরালা পুলিশের উপ-কমিশনার অরুল বি কৃষ্ণ টাইমস অব ইন্ডিয়াকে বলেন, কয়েক বছর ধরে ওই তরুণীর বাবা পক্ষাঘাতগ্রস্ত।

ওই তরুণী যৌন হয়রানির শিকারের জন্য তার মা’কে দায়ী করেছেন। মেয়ের অভিযোগ আমলে না নেয়ায় তদন্ত প্রতিবেদনে ওই নারী দোষী সাব্যস্ত হতে পারেন। এছাড়া ওই তরুণী ফৌজদারি মামলার মুখোমুখি নাও হতে পারেন বলে পুলিশ কমিশনার মন্তব্য করেছেন।

কেরালার মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয় তরুণীর সাহসের প্রশংসা করেছেন। তিনি বলেছেন, লিঙ্গকর্তন এই ঘটনা ‘সাহসী এবং শক্তিশালী।’

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts