নবজাতকের দুটি পুরুষাঙ্গ ও দুটি মলদ্বার!

এক ছেলের-দুই-পুরুষাঙ্গ-ও-দুই-মলদ্বার
Share Button

মাগুরায় দুটি পুরুষাঙ্গ ও দুটি মলদ্বার নিয়ে একটি শিশু জন্মগ্রহণ করেছে। সোমবার রাত সাড়ে আটটার দিকে মাগুরা শহরের একটি ক্লিনিকে শিশুটির জন্ম হয়। দুটি পুরুষাঙ্গ নিয়ে শিশু জন্মানোর খবর ছড়িয়ে পড়লে দলে দলে লোকজন শিশুটিকে দেখতে ওই ক্লিনিকে ভিড় জমায়। বাবা-মায়ের সঙ্গে শিশুটি ওই ক্লিনিকের ডাক্তার অপূর্ব কুমার বিশ্বাস নতুন সময়কে জানান, অবিশ্বাস্য হলেও দুটি মলদ্বার ও দুটি পুরুষাঙ্গ নিয়ে শিশুটি জন্ম নিয়েছে। বাচ্চাটি তার দুটি পুরুষাঙ্গ দিয়েই প্রস্রাব করছে।
আবার দুটি মলদ্বার দিয়েই মলত্যাগ করছে শিশুটি। তাই ভয়ের কোনো কারণ নেই। মা ও শিশু দুজনই সুস্থ আছে। ডা. অপূর্ব কুমার বিশ্বাসের সঙ্গে ক্লিনিকের সেবীকারা সিজারের মাধ্যমে জন্ম নেওয়া শিশুটির এ অবস্থা দেখে ডাক্তার অপূর্ব মাগুরা সদর হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. আবদুল হাইয়ের সঙ্গে পরামর্শ করেন। তিনি জানান, বছর দুয়েক পর একটি অপারেশনের মাধ্যমে শিশুটিকে স্বাভাবিক জীবন ফিরিয়ে দেওয়া সম্ভব। এই ক্লিনিকে জন্ম নিয়েছে শিশুটি শিশুটির বাবা বাবু সোনা রায় বলেন, ‘প্রসব বেদনা ওঠার পর আমার স্ত্রীকে সন্ধ্যা ৬টার দিকে ভায়নার মোড়ের এহসান জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাই। রাত সাড়ে আটটার দিকে ডা. অপূর্ব অপারেশন করেন।

কিন্তু দুটি পুরুষাঙ্গ ও দুটি মলদ্বার নিয়ে সন্তানের জন্ম হয়েছে শুনে খুব চিন্তায় পড়ে যাই। পরে অবশ্য ডা. আবদুল হাইয়ের কথা শুনে আর কোনো চিন্তা করছি না। মা ও শিশু দুজনই ভালো আছে।’ বাবু সোনা রায়ের বাড়ি মাগুরা সদরের নতুন বাজার এলাকায়। তিনি ওই এলাকার নিতাই রায়ের ছোট ছেলে।
তার স্ত্রীর নাম তনিমা রায়। রিক্তিকা সোনা নামে চার বছরের একটি মেয়ে আছে তাদের। বাবু সোনা মাগুরার সোনাপট্টিতে একটি স্বর্ণের দোকানের কারিগরের কাজ করেন। তিনি জানান, চিকিৎসকরা বলেছেন ছেলের চিকিৎসার জন্য অনেক টাকা খরচ হবে। সামান্য আয় দিয়ে কোনোমতে তার সংসার চলে। ছেলের চিকিৎসার জন্য এত টাকা কীভাবে জোগাড় করবেন, তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন তিনি। ছেলের চিকিৎসার জন্য সরকার ও বিত্তবানদের প্রতি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে তিনি আবেদন জানিয়েছেন।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts