মালিবাগে ফ্লাইওভারের গার্ডার পড়ে নিহত ব্যক্তির পরিচয় মিলেছে

মুলিবাগে গার্ডার ধসে একজন নিহত

রাজধানীর মালিবাগ রেলগেট এলাকায় নির্মাণাধীন উড়ালসড়কের (ফ্লাইওভার) গার্ডার পড়ে নিহত ব্যক্তির পরিচয় জানা গেছে।
নিহত ব্যক্তির নাম মো. স্বপন (৪০)। তাঁর বাড়ি কিশোরগঞ্জে।

মালিবাগ রেলগেট এলাকার লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, রেলগেটের কাছেই সততা ফার্নিচার নামের একটি দোকানে কাজ করতেন স্বপন।

সততা ফার্নিচারের মালিক পরিচয় দেওয়া মো. কবিরের ভাষ্য, প্রায় দুই দশক ধরে তাঁর দোকানে কাঠমিস্ত্রির কাজ করতেন স্বপন। তিন-চার দিন আগে গ্রামের বাড়িতে গিয়েছিলেন তিনি। গতকাল রোববার সকালে ঢাকায় ফেরেন।

কবিরের ভাষ্য, রাতে উড়ালসড়কের নির্মাণকাজ চলার সময় লোকজন যাতে চলাচল করতে না পারে, তার জন্য চার ঘণ্টার চুক্তিতে কাজ করছিলেন স্বপন। প্রথমবার এই কাজ করেন তিনি। এর মধ্যে দুর্ঘটনা ঘটে।

কবির জানান, ডিআইটি রোডের একটি বাসায় থাকতেন স্বপন। বাড়িতে তাঁর স্ত্রী ও তিন ছেলেশিশু রয়েছে।

গতকাল দিবাগত রাতে মালিবাগ রেলগেট এলাকায় নির্মাণাধীন উড়ালসড়কের গার্ডার পড়ে স্বপন নিহত হন। তাঁর লাশ ঢাকা মেডিকেল কলেজের মর্গে রাখা হয়েছে।
তা ছাড়া এ দুর্ঘটনায় পলাশ ও নুরুন্নবী নামের দুজন আহত হয়েছেন। দুর্ঘটনার পর তাঁদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়।

গার্ডার পড়ে হতাহতের ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

Related posts

মালিবাগে ফ্লাইওভারের গার্ডার পড়ে পথচারী নিহত, প্রকৌশলীসহ আহত ২

মুলিবাগে গার্ডার ধসে একজন নিহত

রাজধানীর মালিবাগে রেলগেট সংলগ্ন নির্মাণাধীন ফ্লাইওভারের গার্ডার পড়ে স্বপন নামে এক পথচারী নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন এক প্রকৌশলী ও পথচারী। আহত দু’জনই তাদের পা হারিয়েছেন। নিহত স্বপনের গ্রামের বাড়ি কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায়। তিনি স্থানীয় একটি ফার্নিচারের দোকানে কাজ করতেন।

রোববার দিবাগত রাত ২টার দিকে নির্মাণকাজ চলাকালে এ দুর্ঘটনা ঘটে। আহতরা ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। ক্রেন দিয়ে ওই গার্ডার তুলার সময় তা হঠাৎ নিচে ছিটকে পড়ায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় সারা দেশের সঙ্গে সাড়ে তিন ঘণ্টা রেল যোগাযোগ বন্ধ ছিল।

জানা গেছে, আহতদের মধ্যে একজন তমা কনস্ট্রাকশনের প্রকৌশলী পলাশ। অন্য পথচারীর নাম নুরুন্নবী (৪০)। দুর্ঘটনার সময় দায়িত্ব পালনে নিয়োজিত ছিলেন প্রকৌশলী পলাশ। আর উৎসুক দৃষ্টিতে নির্মাণকাজ দেখছিলেন পথচারী দুজন। এ সময়ই দুর্ঘটনাটি ঘটে। পরে ঘটনাস্থলে যান জিআরপি পুলিশ-রামপুরা-রমনা থানা পুলিশ। ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা গার্ডারটি সরিয়ে ফেলেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী আশরাফুল ইমন জানান, রাত ২টার দিকে ফ্লাইওভারের ওপর ক্রেন দিয়ে নিচ থেকে একটি গার্ডার ওঠানো হচ্ছিল। হঠাৎ সেটা ছিটকে নিচে পড়লে এ দুর্ঘটনা ঘটে। তখন তিনজনেরই পায়ের হাঁটুর নিচে কাটা পড়ে। এদের মধ্যে একজন ঢামেকে মারা যান।

রমনা থানার ওসি (তদন্ত) আলী হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, রাত ৩টা ৫০ মিনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় স্বপনের মৃত্যু হয় ঢামেক হাসপাতালে।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

Related posts