রেশন কার্ড চাওয়ায় ধর্ষণের শিকার নারী

Share Button

রেশন কার্ড করিয়ে দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে দলিত এক নারীকে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে ভারতের মধ্যপ্রদেশের এক বিজেপি নেতা ও তাঁর দুই সহযোগীর বিরুদ্ধে। ওই বিজেপি নেতার নাম ভোজপাল সিং জাদন।

আজ বুধবার হিন্দুস্তান টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওই বিজেপি নেতার নাম ভোজপাল সিং জাদন। ঘটনাটি ঘটেছে গত রোববার রাতে মধ্যপ্রদেশের মোরেনা এলাকায়। ধর্ষণের শিকার ৩৫ বছর বয়সী ওই নারী মোরেনার সুমাওয়ালি গ্রামের বাসিন্দা।

মোরেনার পুলিশ সুপার ভিনিত খান্না বলেন, ‘বিজেপি নেতা ভোজপালসহ তিনজনের বিরুদ্ধে একটি গণধর্ষণের মামলা হয়েছে। এখনো কাউকে গ্রেপ্তার করা যায়নি।’

পুলিশ সুপার বিনিত খান্না বলেন, ওই নারীকে গণধর্ষণ করা এলাকায় পুলিশের একটি দল পরিদর্শন করেছে। সেখানে একজন প্রত্যক্ষদর্শী পুলিশকে জানিয়েছেন, রোববার রাতে ভোজপাল এক নারীকে নিয়ে সেখানে গিয়েছিলেন। অল্প টাকায় যাতে রেশনের পণ্য কিনতে পারেন, এ কারণে নাম নিবন্ধন করতে তাঁর কাছে গিয়েছিলেন ওই নারী।

প্রতিবেদনে বলা হয়, সুমাওয়ালি গ্রামে রেশন পণ্যের দোকান চালানো সংস্থার সচিবের পদে রয়েছেন বিজেপি নেতা ভোজপাল। তিনি ওই নারীকে কার্ড করিয়ে দেওয়ার জন্য তাঁর অফিসে ডেকেছিলেন।

ধর্ষণের শিকার ওই নারীর অভিযোগ, রোববার রাতে তিনি নাম নিবন্ধনের জন্য ভোজপালের সঙ্গে দেখা করতে তাঁর অফিসে যান। এ সময় ভোজপাল তাঁকে জোর করে তাঁর রুমে ঢুকিয়ে দুই সহযোগীসহ ধর্ষণ করেন। ধর্ষণকারীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করলে এর ফল খুবই ভয়ানক হবে বলেও হুমকি দেন ভোজপাল। বিষয়টি তিনি তাঁর স্বামীকে জানানোর পর তাঁরা স্থানীয় থানায় ওই তিনজনের নামে গণধর্ষণের মামলা করেন।

গতকাল মঙ্গলবার মধ্যপ্রদেশ বিধানসভায় বিষয়টি উত্থাপন করেছে বিরোধী দল। বিরোধীদলীয় নেতা অজয় সিংয়ের অভিযোগ, কী করে শাসক দলের একজন নেতা ধর্ষণ করতে পারেন! এ ছাড়া তিনি এখন প্রত্যক্ষদর্শীকেও প্রভাবিত করার চেষ্টা করছেন।

মোরেনা বিজেপির সাধারণ সম্পাদক জয়া চতুর্বেদী বলেন, এ অভিযোগের ব্যাপারে তাঁর কিছু জানা নেই। এ ব্যাপারে মন্তব্য করতেও রাজি হননি তিনি।

এ বিষয়ে জানতে মোরেনা বিজেপির জেলা সভাপতি অনুপ সিংকে ফোন করা হলে তিনি ফোন কেটে দিয়েছেন।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts