তুরস্কে সেনা অভ্যুত্থান চেষ্টার ভিডিও দেখুন

তুরস্কে সেনা অভ্যুত্থান চেষ্টার ভিডিও দেখুন

তুরস্কে সেনাবাহিনীর একটি অংশ অভ্যুত্থান চেষ্টার ঘটনায় প্রধানমন্ত্রী বিনিয়ালি এলদ্রিম বিবিসিকে জানিয়েছেন, এ পর্যন্ত ১৭ পুলিশ কর্মকর্তাসহ ১৬১জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এখন পর্যন্ত বেসামরিক নাগরিকসহ ১ হাজার ৪৪০ জন আহত হয়েছে। তাছাড়া সেনা অভ্যুত্থানের চেষ্টায় জড়িত ২ হাজার ৮৩৯ সেনা সদস্যকে আটক করেছে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা।

সেনা অভ্যুত্থান চেষ্টার ঘটনাপ্রবাহ দেখে নিন ভিডিওতে।

এর আগে শুক্রবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার (বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ১০টা) দিকে হঠাৎ করে সেনা বাহিনীর সাঁজোয়া যান বসফরাস ও সুলতান মেহমুত সেতুর ওপর অবস্থান নিয়ে গাড়ি চলাচল বন্ধ করে দেয়। হঠাৎ রাজপথে সেনা উপস্থিতি আঙ্কারা ও ইস্তাম্বুলের মানুষদের আতঙ্কিত করে তোলে এবং আতঙ্ক ছড়িয়ে যায় ‍পুরো তুরস্কে। সিএনএন-তুর্ক টেলিভিশনসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমের নিয়ন্ত্রণও নেয় বিদ্রোহী সেনারা। এরদোয়ানের দল এ কে পার্টির ইস্তানবুলের দপ্তরেও হানা দেয় বিদ্রোহী সেনা সদস্যরা। এরপর স্থানীয় সময় রাত ৯টার দিকে রাষ্ট্রীয় টিভি টিআরটিতে খবর আসে, ‘গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা ও মানবাধিকার রক্ষার স্বার্থে’ সশস্ত্র বাহিনী তুরস্কের ক্ষমতা দখল করেছে। টেলিভিশনের পর্দায় পড়ে শোনানো ওই বিবৃতিতে বলা হয়, এখন ‘শান্তি পরিষদ’ দেশ চালাবে এবং সান্ধ্য আইন ও সামরিক আইন জারি থাকবে। একই সঙ্গে তুরস্কের বিদ্যমান বৈদেশিক সব সম্পর্ক বহাল থাকবে এবং আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা প্রাধান্য পাবে বলে ওই বিবৃতিতে বলা হয়।

ঘন্টাখানেকের মধ্যে অবকাশে থাকা এরদোয়ান সিএনএন-তুর্ক চ্যানেলে এক ভিডিও বার্তায় তুরস্কের জনগণকে রাজপথে নেমে আসার ও বিমানবন্দর দখলে নেওয়ার আহবান জানান। এরপরই আস্তে আস্তে পরিস্থিতি পাল্টাতে শুরু করে। লাখ লাখ মানুষ রাস্তায় নেমে আসে এবং সেনাবাহিনী আস্তে আস্তে নিষ্ক্রিয় হতে শুরু করে। সামগ্রিক পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে বিশ্লেষকরা অভ্যুত্থান ব্যর্থ হয়েছে বলে মত দিলেও সেনাবাহিনীর ওই অংশটি লড়াই চালিয়ে যাওয়ার অঙ্গীকার করেছে।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts